করোনায় চিকিৎসা দিচ্ছেন আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী লিও ভারাদকার পেশায় একজন চিকিৎসক। তবে সক্রিয় রাজনীতি শুরু করবেন বলে ২০১৩ সালে তিনি চিকিৎসক হিসেবে তাঁর নিবন্ধন প্রত্যাহার করে নেন। করোনাভাইরাস যখন মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ল, তিনি বসে থাকতে পারলেন না। চিকিৎসক হিসেবে সামনের সারিতে থেকে করোনা মোকাবিলা করার জন্য তিনি আবার নিবন্ধন নেন। 

আইরিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় জানায়, লিও ভারাদকার গত মার্চ থেকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সপ্তাহে একদিন এক পালায় রোগীর চিকিৎসা করছেন। প্রধানমন্ত্রী লিওর পরিবার ও স্বজনদের অনেকেই চিকিৎসা সেবা পেশায় যুক্ত। তাঁর বাবা একজন চিকিৎসক ও মা নার্স। তাঁর স্ত্রী একজন চিকিৎসক। এই দুর্যোগে প্রধানমন্ত্রীর স্বজন–বন্ধুরা করোনা মোকাবিলার যুদ্ধে সামনের সারিতে থেকে লড়ছেন। তিনিও তাই চিকিৎসক হিসেবে কিছু করার তাগিদ থেকে এই লড়াইয়ে শামিল হয়েছেন।


আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী লিও ভারাদকার। ছবি: রয়টার্স
আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী লিও ভারাদকার পেশায় একজন চিকিৎসক। তবে সক্রিয় রাজনীতি শুরু করবেন বলে ২০১৩ সালে তিনি চিকিৎসক হিসেবে তাঁর নিবন্ধন প্রত্যাহার করে নেন। করোনাভাইরাস যখন মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ল, তিনি বসে থাকতে পারলেন না। চিকিৎসক হিসেবে সামনের সারিতে থেকে করোনা মোকাবিলা করার জন্য তিনি আবার নিবন্ধন নেন। 

আইরিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় জানায়, লিও ভারাদকার গত মার্চ থেকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সপ্তাহে একদিন এক পালায় রোগীর চিকিৎসা করছেন। প্রধানমন্ত্রী লিওর পরিবার ও স্বজনদের অনেকেই চিকিৎসা সেবা পেশায় যুক্ত। তাঁর বাবা একজন চিকিৎসক ও মা নার্স। তাঁর স্ত্রী একজন চিকিৎসক। এই দুর্যোগে প্রধানমন্ত্রীর স্বজন–বন্ধুরা করোনা মোকাবিলার যুদ্ধে সামনের সারিতে থেকে লড়ছেন। তিনিও তাই চিকিৎসক হিসেবে কিছু করার তাগিদ থেকে এই লড়াইয়ে শামিল হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী লিও দেশটির হেলথ সার্ভিস এক্সিকিউটিভের হয়ে সপ্তাহে একদিন কাজ করছেন। তিনিই প্রথম ইউরোপীয় সরকারপ্রধান যিনি করোনা দুর্যোগে সরাসরি চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন।

আইরিশ প্রধানমন্ত্রীর এমন ভূমিকা বিশ্বব্যাপী প্রশংসা কুড়িয়েছে। রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার জন্য চিকিৎসা নিবন্ধন প্রত্যাহার করার আগে তিনি ডাবলিনের সেন্ট জেমস হসপিটালে জুনিয়র চিকিৎসক হিসেবে প্রায় সাত বছর কাজ করেছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *